1. rakibchowdhury877@gmail.com : Narayanganjer Kagoj : Narayanganjer Kagoj
  2. admin@narayanganjerkagoj.com : nkagojadmin :
বৃহস্পতিবার, ০৯ ডিসেম্বর ২০২১, ১২:২৩ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম :
ফতুল্লা ইউনিয়নে উম্মে তাহেরা আঁখি’র বক মার্কা নিয়ে ভোট প্রার্থনা বক মার্কায় ভোট চাইলেন মহিলা মেম্বার প্রার্থী উম্মে তাহেরা আঁখি পানির পাম্প মার্কায় ভোট চেয়েছেন ৪নং ওয়ার্ড মেম্বারপ্রার্থী মঈনউদ্দিন মানুষের সেবায় নিজেকে বিলিয়ে দিতে চান কাজী মঈনউদ্দিন ফতুল্লায় তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে হামলা, আহত ৫ ফতুল্লায় মৎসজীবী লীগের প্রতিষ্ঠা বার্ষিকীতে আনন্দ র‌্যালী খেলাধুলা মানুষের মন ও শরীরকে দৃঢ় করে : লিটন ফতুল্লার সেই কিশোরের আত্মহননের ঘটনায় মামলা খালেদার মুক্তি ও বিদেশে সুচিকিৎসার দাবিতে ডিসিকে জেলা বিএনপির স্মারকলিপি বিএনপির নেতাদের ধৈর্য্যের পরীক্ষা নিবেন না : সেন্টু সোনারগাঁয়ের মোগড়াপাড়া ইউপি নির্বাচন কার স্বার্থে হচ্ছেনা? কেন্দ্রীয় ছাত্র অধিকার পরিষদের কমিটিতে নারায়ণগঞ্জের ৪ ‘ফাস্ট টাইম মেশিন চালাইলাম’ ফতুল্লায় সেই কিশোরের আত্মহত্যা কাজী মঈনউদ্দিনের প্রথম উঠান বৈঠকে মানুষের ঢল সাংবাদিক লিংকনের মুক্তির দাবিতে প্রতিবাদ সভা

কুতুবপুরের বহুল বিতর্কিত আলাউদ্দিন মেম্বার পরাজয়ের শঙ্কায় শঙ্কিত

বিশেষ সংবাদদাতা
  • প্রকাশিত সময় : বুধবার, ১০ নভেম্বর, ২০২১
  • ২৯২ বার পঠিত
কুতুবপুরের বহুল বিতর্কিত আলাউদ্দিন মেম্বার পরাজয়ের শঙ্কায় শঙ্কিত

বিশাল সন্ত্রাসী বাহিনী নিয়ে চলেন তিনি৷ ভূমিদস্যুতায় তার জুড়ি মেলা ভার। কিশোর গ্যাংয়ের শেল্টারদাতা হিসেবেও বারবারই উঠে আসে তার নাম৷ অভিযোগ রয়েছে, তার ও তার পুত্রের নিয়ন্ত্রণে থাকা ১০০-১৫০ সদস্যের কিশোর গ্যাং যেকোনো ঘটনায় মহল্লায় মহল্লায় চাপাতি, ছেন, রামদা, গিয়ার নিয়ে মহড়া দেয় ও হতাহতের ঘটনা ঘটায়৷ মাদক ব্যবসা ও জুয়ার বোর্ডেও হাত পাকিয়েছেন তিনি৷ পিতা- পুত্র নিয়ন্ত্রণ করেন কুতুবপুরের বিশাল এলাকার মাদক ব্যবসা ও জুয়ার বোর্ড৷ বলা হচ্ছে, কুতুবপুরের বহুল আলোচিত-সমালোচিত ইউপি সদস্য আলাউদ্দিন হাওলাদারের কথা।

এলাকাবাসী সূত্রে জানা যায়, আলাউদ্দিনকে নিয়ে জেলাজুড়েই চর্চা কম হয়নি৷ তার অসংখ্য নেতিবাচক কর্মকাণ্ড ফলাও করে প্রচার হয়েছে জাতীয় ও স্থানীয় গণমাধ্যমগুলোতে। গত বছরের শুরুতে চুরির অপবাদ দিয়ে নিজ অফিসে ধরে এনে দুই যুবককে পৈশাচিক কায়দায় পেটান তিনি, যা চলে আসে আলোচনার শীর্ষে। নারী কেলেঙ্কারিতেও নিজের নাম জড়িয়েছেন তিনি৷ বছরজুড়ে নানা বিতর্কিত কর্মকান্ডের জন্ম দিয়ে তিনি আলোচনায় থাকলেও উন্নয়নকাজে তাকে পাওয়া দুষ্কর৷ ওয়ার্ডের অধিকাংশ রাস্তাই ভাঙাচোরা, পরিবেশ জরাজীর্ণ। সরকারি সহায়তা বরাদ্দেও অনিয়মের অভিযোগ আছে আলাউদ্দিনের বিরুদ্ধে

জানা যায়, স্থানীয়ভাবে একচ্ছত্র আধিপত্য বিস্তার করেছেন আলাউদ্দিন ও তার পুত্র তপন৷ প্রয়াত এমপি কবরী আমলে চিতাশালে বিশালাকারের জুয়ার বোর্ড পরিচালনা করে সমালোচিত হন তিনি৷ কবরীর লোক পরিচয়ে নিয়ন্ত্রণহীনভাবে চালিয়ে যেতে থাকেন মাদক ব্যবসা, যা দেখভালের দায়িত্বে ছিল পুত্র তপন৷ এমনকি মাদক ব্যবসার ভাগবাটোয়ারা নিয়ে পিতা ও পুত্রের মধ্যে একাধিকবার প্রকাশ্যে হাতাহাতি হয়। তারই জের ধরে তপনকে পুলিশেও সোপর্দ করেন আলাউদ্দিন।

একাধিক সূত্রমতে, আলাউদ্দিনের বাড়ি থেকে জুয়া খেলারত অবস্থায় আলাউদ্দিন, পুত্র তপনসহ ১৮জনকে পাওয়া যায়৷ সে যাত্রায় দেনদরবারে আলাউদ্দিন ও তপন রেহাই পান। বাকি ১৬জনকে আটক করে আদালতে চালান করে দেওয়া হয়।

সম্প্রতি স্থানীয় আওয়ামী লীগের এক নেতা ভাষণে নামোল্লেখ না করে বলেন, ‘৫নং ওয়ার্ডের এক মেম্বার প্রার্থী মুসলিমপাড়ায় তিনটি ও দৌলতপুরে দুইটি বাড়ি জোরপূর্বক দখল করেছেন৷ তিনি কবরস্থানের অর্থ আত্মসাৎ, মাদকের শেল্টার, জুয়ার বোর্ড পরিচালনা, জমি দখলসহ অসংখ্য অপকর্মে লিপ্ত৷ কুতুবপুর আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরাসহ জনসাধারণ তাকে বয়কটের অপেক্ষায় আছে৷ ব্যালটের মাধ্যমেই তারা ওই প্রার্থীর সকল অপকর্মের জবাব দিবে।’

এলাকাবাসীর ধারণা, ওই আওয়ামী লীগ নেতা আলাউদ্দিন হাওলাদারের কথাই ইঙ্গিত করেছেন৷ সম্প্রতি কবরস্থান ইস্যুতেও কেলেঙ্কারিতে জড়ান আলাউদ্দিন৷ কবরস্থানের কবর খুঁড়ে লাশ উত্তোলন করে সেখানে মার্কেট নির্মাণের চেষ্টার অভিযোগে তার বিরুদ্ধে মানববন্ধন করে এলাকাবাসী৷ তাদের অভিযোগ, আলাউদ্দিন দোকান ভাড়া ও জামানত বাবদ ব্যবসায়ীদের কাছ থেকে বিপুল অর্থ নিয়েছেন৷

তবে এত অপকর্মের পরেও আবারও ইউপি সদস্য হওয়ার স্বপ্ন নিয়ে মাঠে রয়েছেন আলাউদ্দিন৷ অন্যান্য প্রার্থীর কর্মী-সমর্থক ও সাধারণ ভোটারদের হুমকি দেওয়ার অভিযোগও আছে তার বিরুদ্ধে৷ ইউপি সদস্য হতে নিজেকে এমপি শামীম ওসমানের প্রার্থী হিসেবেও জাহির করছেন তিনি৷ এমনকি জনসাধারণের ভোট না পেলেও পাশ করবেন, এমন ঔদ্ধত্যপূর্ণ বক্তব্যও আলাউদ্দিন দিচ্ছেন বলে জানায় এলাকাবাসী৷

সূত্রমতে, কুতুবপুরের বহুল আলোচিত চেয়ারম্যান মনিরুল আলম সেন্টুর সাথে আলাউদ্দিনের সুসম্পর্ক রয়েছে। গত নির্বাচনে নৌকা প্রতীকের বিরুদ্ধে গিয়ে প্রকাশ্যে সেন্টুর আনারসের পক্ষে ভোট চেয়ে উঠান বৈঠক, মিছিল করেন আলাউদ্দিন৷ নিজ বলয়ের আলাউদ্দিনকে আবারও মেম্বার পদে দেখতে মরিয়া হয়ে উঠেছেন সেন্টু৷ প্রভাব বিস্তারের চেষ্টার অভিযোগও উঠেছে সেন্টুর বিরুদ্ধে৷ অন্য প্রার্থীদের শুরুতে ম্যানেজের চেষ্টা করে ব্যর্থ হওয়ার পরে সেন্টু এখন ভয়ভীতি প্রদর্শনের পথ ধরেছেন৷ এমনকি সেন্টুর লোকেরা বলে বেড়াচ্ছেন, চেয়ারম্যান যাকে মেম্বার হিসেবে চাইবেন, তাকেই মেম্বার বানানোর ক্ষমতা রাখেন৷

উদ্ভুত পরিস্থিতিতে আতঙ্কে রয়েছেন অন্যান্য প্রার্থীসহ সাধারণ ভোটারেরা৷ তারা চাইছেন, ভূমিদস্যুতা, মাদক ব্যবসা ও নারী কেলেঙ্কারিতে জর্জরিত মেম্বারের বদলে একজন ভালো মানুষকে মেম্বার হিসেবে বেছে নিতে৷ আর সেই চাওয়ার পথে অনৈতিকভাবে বাধা প্রদানকে চরম অন্যায় হিসেবে দেখছেন বিশ্লেষকেরা৷

আগামী ১১ নভেম্বর কুতুবপুরে ইউপি নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে৷ ৫নং ওয়ার্ডে বহুল বিতর্কিত মেম্বার আলাউদ্দিন হাওলাদার ছাড়াও প্রার্থী হিসেবে মাঠে রয়েছেন মোঃ খবির উদ্দিন, মোঃ বাবুল মিয়া, নজরুল ইসলাম টিপু, মোঃ দ্বীন ইসলাম দিলু, মোঃ কামাল হোসেন, মোঃ হুমায়ুন কবির৷

এসকল প্রার্থীদের মধ্যে বাবুল মিয়া, নজরুল ইসলাম টিপু ও আলাউদ্দিন হাওলাদারের মধ্য ত্রিমুখী ভোট যুদ্ধ হবে বলে মনে করছেন ভোটাররা।

নিউজটি শেয়ার করুন :

আপনার মন্তব্য প্রদান করুন...

এই ক্যাটাগরীর আরো খবর..

error: Content is protected !!