1. rakibchowdhury877@gmail.com : Narayanganjer Kagoj : Narayanganjer Kagoj
  2. admin@narayanganjerkagoj.com : nkagojadmin :
শনিবার, ২১ মে ২০২২, ০৮:০৬ পূর্বাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম :
ফতুল্লা ইউপিতে সাড়ে ৫ কোটি টাকার খসড়া বাজেট ঘোষনা নবনিযুক্ত জেলা পরিষদ প্রশাসককে ফতুল্লা রিপোর্টার্স ক্লাবের শুভেচ্ছা সিদ্ধিরগঞ্জের ভয়ংকর মাদক ব্যবসায়ী হান্নান প্রধান, তদন্তের দাবী হকার জুবায়ের হত্যাকান্ড : মামলা তুলে নিতে বাদীকে হুমকি ফতুল্লা মডেল থানার নতুন ওসি রিজাউল হক দিপু সম্পত্তি লিখে না দেয়ায় ৭৫ বছরের বৃদ্ধা মাকে ছেলের নির্যাতন! সাংবাদিককে ছুরিকাঘাতে হত্যার চেষ্টা : ফতুল্লা রিপোর্টার্স ক্লাবের নিন্দা তরে মারছি, আরো মারমু : বেপরোয়া জাকির মেম্বার ঈদুল ফিতরে নারায়ণগঞ্জবাসীকে শাহ্-আলমের শুভেচ্ছা এবার ঈদে শোয়েব মনিরের ওয়েব সিরিজ ‘ভেড়ার পাল’ ঈদুল ফিতরে নারায়ণগঞ্জবাসীকে কাজী আনিসুর রহমানের শুভেচ্ছা আলোকিত মাসদাইর সংসদের উদ্যোগে ঈদ খাদ্য-সামগ্রী বিতরণ ঈদুল ফিতরে নারায়ণগঞ্জবাসীকে রণজিৎ মোদকের শুভেচ্ছা গরিবের কেনাকাটার ভরসা ফুটপাত ঈদুল ফিতর উপলক্ষে নারায়ণগঞ্জবাসীকে রিয়াদ মোঃ চৌধুরীর শুভেচ্ছা

গরিবের কেনাকাটার ভরসা ফুটপাত

নারায়ণগঞ্জের কাগজ ডেস্ক
  • প্রকাশিত সময় : রবিবার, ১ মে, ২০২২
  • ৪৩ বার পঠিত
গরিবের কেনাকাটার ভরসা ফুটপাত

নারায়ণগঞ্জ শহরের ফুটপাতের কাপড়ের দোকানগুলোতে এখন উপচে পড়া ভিড়। ঈদের কেনাকাটার শেষ পর্যায়ে এসে নিম্ন আয়ের মানুষের কাপড়-চোপড় কেনার একমাত্র ভরসাস্থল ফুটপাতের দোকান।

শনিবার ৩০ এপ্রিল শহরের বঙ্গবন্ধু সড়কে ও কালিবাজার এলাকায় রাস্তার গা-ঘেঁষে বসা দোকানগুলো দেখতে গেলে চোখে পড়ে কেনাবেচার জমজমাট চিত্র। দিনমজুর, রাজমিস্ত্রির হেলপার, রিকশাচালক ও মাটি কাটার শ্রমিক শ্রেণির লোকজন ছেলে মেয়েকে নিয়ে এসেছেন কম পয়সায় ঈদের কাপড়-চোপড় কিনতে। দোকানিরাও বেশ উদ্যম নিয়ে বিক্রি করেছেন পোশাক।

কথা হয় দিনমজুর জাফর শেখের সঙ্গে। দুই ছেলেমেয়ে নিয়ে এসেছেন তিনি। ৬০০ টকায় তাদের জামা কিনেছেন। নিজের জন্য কিনেছেন একটি লুঙ্গি। স্ত্রীর জন্য কম দামে কাপড় খুঁজছেন। তার ছেলেমেয়েরা জামা পেয়ে খুব খুশি।

রাজমিস্ত্রির সহকারী হাশেম আলী নিজের ঈদের নামাজ পড়ার জন্য ৫৫০ টাকায় একটি পাঞ্জাবি কিনেছেন। এবারের ঈদে আর নতুন কোনো কাপড় কেনা সম্ভব নয়। করোনাকালের দেনা শোধ করতেই হিমশিম খাচ্ছেন বলে জানালেন হাশেম।

ফুটপাতের দোকানি শফিকুল ইসলাম জানালেন, গেল দুই বছর ঈদের সময় মানুষের দুঃসহ অবস্থা ছিল। নতুন কাপড় কেনা সম্ভব হয়নি তাদের। এবার ঈদের চেহারা ভিন্ন। এভার টাকা দার নিয়ে দোকান সাজিয়েছিলেন। অর্ধেকের বেশি বিক্রি হয়েছে। আগামী দুই দিনে অবশিষ্ট কাপড় বিক্রি হয়ে যাবে বলে আশাবাদ ব্যক্ত করলেন তিনি। যদি এভার ঠিক মতো দোকান দাড়ি করতে পাড়ি তাহলে কিছুটা লাভ হবে বলে আসা করছি।

নিউজটি শেয়ার করুন :

আপনার মন্তব্য প্রদান করুন...

এই ক্যাটাগরীর আরো খবর..

error: Content is protected !!