ডিআইটিতে হকারদের কাছ থেকে মাসে ৬ লক্ষ টাকা চাঁদাবাজি
  1. rakibchowdhury877@gmail.com : Narayanganjer Kagoj : Narayanganjer Kagoj
  2. admin@narayanganjerkagoj.com : Narayanganjer Kagoj : Narayanganjer Kagoj
ডিআইটিতে হকারদের কাছ থেকে মাসে ৬ লক্ষ টাকা চাঁদাবাজি
সোমবার, ২২ এপ্রিল ২০২৪, ১১:২৫ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম :
প্রায় অর্ধকোটি টাকার জাল নোটসহ গ্রেপ্তার ২ শ্রমিকদের সঙ্গে পুলিশের সংঘর্ষে গুলিবিদ্ধসহ আহত ৬০ ফতুল্লায় নতুন আতংক সোর্স মামুন! সোনারগাঁয়ে শিশুকে পুড়িয়ে হত্যার চেষ্টা বিএনপি দিয়ে গঠিত তুষারধারা পঞ্চায়েত কমিটি নিয়ে হট্টগোল! না’গঞ্জে তীব্র গরমে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান আরও ৭ দিন বন্ধ ঘোষণা রবিবার নারায়ণগঞ্জের যেসব এলাকায় গ্যাস থাকবে না আমি ক্যাসিনো ডন না, ষড়যন্ত্র করে ‘ফাঁসানো’ হয়েছে : সেলিম প্রধান বাসচাপায় বাবা-ছেলে নিহত, হাসপাতালে মা সাংবাদিকদের সাথে সর্বজনীন পেনশন স্কিম সংক্রান্ত অবহিতকরণ সভা নারায়ণগঞ্জে ৩ দিনের হিট অ্যালার্ট, বাড়বে অস্বস্তি মেয়র আইভীকে উৎখাতের হুমকি হেফাজত নেতার ফতুল্লায় গাঁজা-রামদাসহ দুইজনকে পুলিশে সোপর্দ করেছে এলাকাবাসী বাংলাদেশে এলো অনারের মিডরেঞ্জ ফ্ল্যাগশিপ এক্স৯বি অটোরিকশার ধাক্কায় ৩ বছরের শিশু নিহত

ডিআইটিতে হকারদের কাছ থেকে মাসে ৬ লক্ষ টাকা চাঁদাবাজি

নারায়ণগঞ্জের কাগজ ডেস্ক
  • প্রকাশিত সময় : সোমবার, ১৯ ফেব্রুয়ারী, ২০২৪
  • ২৪৮ বার পঠিত
ডিআইটিতে হকারদের কাছ থেকে মাসে ৬ লক্ষ টাকা চাঁদাবাজি

দীর্ঘ বহুবছর ধরেই শহরের ডিআইটির পিছনের অংশ অর্থ্যাৎ নয়ামাটির পুরো সড়কটি দখল করে হকাররা তাদের ব্যবসা পরিচালনা করে আসছে। কথিত হকার নেতাদের দাবি, এখানে নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশনের মেয়র ডা: সেলিনা হায়াৎ আইভী হকারদের পুর্নবাসনের জন্য অস্থায়ীভাবে বসার অনুমতি দিয়েছে। তবে এ সঠিক সত্যতা নিয়ে রয়েছে ধোয়াশা।

এদিকে দিনের পর দিন এখানকার হকারদের রক্ত চুষে খাচ্ছে কিছু লাইনম্যান খ্যাত কথিত হকার নেতা বা চিহ্নিত চাঁদাবাজরা। তারা প্রত্যেকে বিএনপির সমর্থক, আবার কারো কারো বিএনপির বড় বড় পদও রয়েছে। এদের মধ্যে অন্যতম ডিআইটি হর্কাস বহুমুখী সমবায় সমিতির সভাপতি জামান হোসেন ও স্বেচ্ছাসেবক দল নেতা জাকির।

এরা নিজেদেরকে কখনো মেয়রের খুব কাছের লোক বলে পরিচয় দেয়, আবার কখনো পিজা শামীম, কখনো হাজী রিপন ও কখনো জাকির খানের ঘনিষ্টজন বলে পরিচয় দেয়। এসব পরিচয়ে প্রভাবখাটিয়ে তারা প্রতিদিন প্রায় ২শ হকারদের কাছ থেকে ৫০-১০০ টাকা হারে চাঁদা আদায় করছেন। তারা প্রশাসন ও সাংবাদিকদের চোঁখ ফাঁকি দিতে বলছেন, এসব টাকা তারা বিদ্যুৎ বিল বাবদ নিচ্ছেন। অথচ একটি লাইটের জন্য প্রতিদিন যদি ৫০ টাকা হারে চাঁদা নেয়া হয়, তাহলে মাসে ওই লাইট বিল দাঁড়ায় ১৫০০ টাকা। কিন্তু বাস্তবে একটি লাইট বাবদ প্রতিমাসে বিল আসবে সর্বোচ্চ দেড়শ থেকে ২শ টাকা। সুতরাং তারা যে, লাইট বিলের নামে চাঁদাবাজি করছে এতেই তা প্রমাণ হয়।

সরেজমিনে দেখা গেছে, বেশিরভাগ দোকানে একাধিক এলইডি লাইট ব্যবহার করে। ক্রেতাদের কাছে দোকানকে আকোর্ষণ করে তুলে ধরতে কোন কোন দোকানে ৪টি আবার কোন কোন দোকানে ৫-৬টি লাইট ব্যবহার করছে হকাররা। যদি গড়ে প্রতি দোকানে ২টিও এলইডি লাইট ধরা হয়, তাহলে প্রায় ২শ দোকান থেকে প্রতিমাসে ৬ লক্ষ টাকা আসে। আর বিশাল অংকের এ চাঁদাবাজির টাকা বন্টন করে স্বেচ্ছাসেবক দল নেতা জাকির হোসেন।

বিশ্বস্ত সূত্রে জানা গেছে, এ চাঁদাবাজির টাকা ৫টি বন্টন করা হয়। এক বন্টন নেন পিজা শামীম, এক বন্টন হাজী রিপন, এক বন্টন পুলিশ প্রশাসন, এক বন্টন তাদের পালিত কিশোর গ্যাং ও সন্ত্রাসীদের ও আর এক বন্টন তাদের। তবে পুলিশ-প্রশাসন কিংবা উল্লেখিত ব্যক্তিরা এই চাঁদাবাজির টাকা পান কিনা তা নিয়ে রয়েছে সংশয়।

সূত্রটি আরো জানায়, পুলিশ-প্রশাসন ও উল্লেখিত ব্যক্তিদের নাম ব্যবহার করে চাঁদাবাজির সমস্ত টাকা হকার নেতারা নিজেরাই ভোগ করছেন বলে অভিযোগ রয়েছে। বড় আশ্চর্যের ব্যপার, কথিত এ হকার নেতারা কেউ নারায়ণগঞ্জের লোকাল নয়। কারো বাড়ি বরিশাল, কারো মুন্সীগঞ্জ আবার কারো বাড়ি চাঁদপুর। তারা বহিরাগত হয়েও এ নারায়ণগঞ্জবাসীর ঘাড়ে চেপে বসে রক্ত চুষে খাচ্ছে। তাই তাদের এ রক্ত চোষা বন্ধে নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশনের মেয়র ডা. সেলিনা হায়াৎ আইভীসহ প্রশাসনের ঊর্ধ্বতন কর্তাব্যক্তিদের দ্রুত হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন নগরবাসী। (চলবে)।

নিউজটি শেয়ার করুন :

আপনার মন্তব্য প্রদান করুন...

এই ক্যাটাগরীর আরো খবর..