1. rakibchowdhury877@gmail.com : Narayanganjer Kagoj : Narayanganjer Kagoj
  2. admin@narayanganjerkagoj.com : nkagojadmin :
মঙ্গলবার, ১৬ অগাস্ট ২০২২, ০৩:০২ পূর্বাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম :
আমি চাই আপনাদের উন্নয়ন : শামীম ওসমান ফতুল্লায় জাতীয় শোক দিবস পালন বঙ্গবন্ধুর শাহাদাত বার্ষিকীতে যুবলীগ নেতা আজমত আলীর নানা কর্মসূচি আলীগঞ্জ উচ্চ বিদ্যালয়ের উদ্যোগে জাতীয় শোক দিবস পালন জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে ফতুল্লা রিপোর্টার্স ক্লাবে দোয়া ফতুল্লায় যুবলীগ নেতা চুন্নুর উদ্যোগে বঙ্গবন্ধুর শাহাদাত বার্ষিকী পালন শ্রমিক নেতা আজিজুলের উদ্যোগে বঙ্গবন্ধুর শাহাদাত বার্ষিকী পালন ফতুল্লায় মুজিবরের উদ্যোগে বঙ্গবন্ধুর শাহাদাত বার্ষিকী পালন জাতীয় শোক দিবসে বঙ্গবন্ধুর ম্যুরালে জেলা প্রশাসনের শ্রদ্ধাঞ্জলি জাতীয় শোক দিবসে ফরিদ আহম্মেদ লিটনের শ্রদ্ধাঞ্জলি প্রতিমন্ত্রীর মর্যাদা পাওয়ায় মেয়র আইভীকে পলাশের ফুলেল শুভেচ্ছা কুতুবপুরের মেম্বার বাবুল মিয়ার ব্যাপক অনিয়ম!! বঙ্গবন্ধুর শাহাদাত বার্ষিকীতে মিজানুর রহমানের বিনম্র শ্রদ্ধা শ্রমিক লীগ সভাপতি সোহেলকে হত্যার হুমকির প্রতিবাদে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ ফতুল্লায় যৌতুক মামলায় এডভোকেট গ্রেফতার

না’গঞ্জ রেলস্টেশনে ভয়ংকর খুনির মিউজিক ভিডিও হয়েছিল

নারায়ণগঞ্জের কাগজ ডেস্ক
  • প্রকাশিত সময় : শনিবার, ১৫ জানুয়ারী, ২০২২
  • ১২৩ বার পঠিত
না'গঞ্জ রেলস্টেশনে ভয়ংকর খুনির মিউজিক ভিডিও হয়েছিল

উত্তরবঙ্গের বগুড়া শহরে আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে নিজের অবস্থান জানান দিতে তিনজনকে হত্যা করে হেলাল হোসেন ওরফে সেলিম ফকির ওরফে বাউল সেলিম ওরফে খুনি হেলাল (৪৫)। ওই হত্যাকাণ্ডে দায়ের করা মামলা থেকে নিজেকে আড়াল করতে ২০ বছর ধরে বাউল ছদ্মবেশে ঘুরে বেড়াচ্ছেন তিনি।

জানা গেছে, হত্যাকাণ্ডের পর ভৈরব স্টেশনে গান গেয়ে নতুন করে জীবন শুরু করেন এবং দ্বিতীয় বিয়ে করেন। মূলত হত্যাকাণ্ডের সাজা থেকে বাঁচতেই বিভিন্ন সময় বিভিন্ন কৌশল অবলম্বন করে ঘুরতেন। কিন্তু শেষ পর্যন্ত রেহাই হয়নি। ২০ বছর লুকিয়েও রেহাই হলো না, কেননা এই মিউজিক ভিডিও এখন পর্যন্ত সাড়ে পাঁচ কোটিবার দেখা হয়েছে।

কিশোর পলাশ বলেন, ‘ভাঙা তরী ছেঁড়া পাল’ গানের মিউজিক ভিডিও করার জন্য আমরা ঢাকার আশপাশের লোকেশন বেছে নিই। এই মিউজিক ভিডিওর ডিরেক্টর নোমান রবিন ভাই। মূলত আমাদের কোনো মডেল ছিল না। আমরা রাস্তার পাশে যাকে পাচ্ছি আমাদের গল্পের সঙ্গে মিলে গেলে তাকে অফার করছি। দেখবেন, আমাদের গানে একজন মুচি, রাস্তার মানুষ ও ওই বাউলশিল্পী, মানে যিনি সিরিয়াল কিলার, আসলে উনি যে সিরিয়াল কিলার; সর্বোপরি লোকটি যে একজন খারাপ মানুষ সেটা কোনোভাবেই বোঝা আমাদের পক্ষে সম্ভব ছিল না।

কিশোর পলাশ বলেন, ‘আমরা ওই দিন নারায়ণগঞ্জ রেলস্টেশনের আশপাশে শুটিং করছিলাম। হঠাৎ বাউল সেলিমকে দেখতে পাই রেললাইন দিয়ে কোথায় যেন হেঁটে যাচ্ছেন। মনে হলো লোকটাকে মিউজিক ভিডিওতে সামান্য সময়ের জন্য ধরতে পারলে ভালো হতো। যে ফোক, কিছুটা আধ্যাত্মিক ধরনের গান। ওনাকে বললাম, তিনি এককথায় রাজি হয়ে গেলেন। আমরা শুটিং করলাম। এই শুটিংয়ের ঘটনা পাঁচ বছর আগের, আর এই মুহূর্তে এসে জানলাম, লোকটা সিরিয়াল কিলার। আমার এমন একটা ভাইরাল গানে খুনি, ভাবতেই কষ্ট হচ্ছে।’

কিশোর পলাশ একদিক থেকে কিছুটা সন্তোষ প্রকাশও করলেন। বললেন, ‘শুনেছি আমার ভিডিওর সূত্র দিয়ে এই সিরিয়াল কিলারকে ধরা হয়েছে। এটা অবশ্য একদিক থেকে কল্যাণকর কাজ বটে। একজন অপরাধী ধরা পড়ল। ১৬ কোটি মানুষের দেশে একটা ভিডিও যদি সাড়ে চার কোটি মানুষ দেখে, তাহলে নিশ্চয়ই কিছু মানুষের চোখ অবশ্যই ফাঁকি দেওয়া সম্ভব না।

নিউজটি শেয়ার করুন :

আপনার মন্তব্য প্রদান করুন...

এই ক্যাটাগরীর আরো খবর..

error: Content is protected !!