1. rakibchowdhury877@gmail.com : Narayanganjer Kagoj : Narayanganjer Kagoj
  2. admin@narayanganjerkagoj.com : nkagojadmin :
শনিবার, ১৬ জানুয়ারী ২০২১, ১২:৩৯ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম :
ফরিদ আহমেদ লিটনকে প্রান্ত পালের ফুলেল শুভেচ্ছা না’গঞ্জ জেলা ছাত্র-যুব ও শ্রমিক অধিকার পরিষদের প্রতিনিধি সভা অনুষ্ঠিত ফরিদ আহমেদ লিটনকে স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতাকর্মীদের ফুলেল শুভেচ্ছা লিটনকে আদর্শনগর সমাজ উন্নয়ন কমিটির নেতাকর্মীদের ফুলেল শুভেচ্ছা লিটনকে দাপা বালুরঘাট ট্রাক চালক সমিতির নেতাকর্মীদের ফুলেল শুভেচ্ছা মোমেন সিকদারকে কাশিপুর যুব সমাজের ফুলেল শুভেচ্ছা ফরিদ আহমেদ লিটনকে স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতাকর্মীদের ফুলেল শুভেচ্ছা ফতুল্লা থানা আ’লীগের যুগ্ম সম্পাদক নির্বাচিত হওয়ায় লিটনকে ফুলেল শুভেচ্ছা মাদকাসক্ত চিকিৎসায় ১৭ বছরের অগ্রযাত্রায় ‘প্রয়াস’ পল্টনে ছাত্রদল নেতা রনির কুশপত্তলিকা দাহ আইনকে বৃদ্ধাঙ্গুল দেখিয়ে শুক্রবারও দোকান খোলা ফতুল্লা ব্লাড ডোনার্সের দিনব্যাপী কর্মসূচি পালিত নেতা-কর্মীদের ভালবাসায় সিক্ত হলেন রিয়াদ মোঃ চৌধুরী ফতুল্লায় মনিরুলের বিরুদ্ধে চাঁদাবাজি ও মারধরের অভিযোগ শিবু মাকের্টে মহানগর মা ও শিশু হাসপাতালের উদ্বোধন

ফতুল্লায় অগ্নিদগ্ধ বাবা-মেয়ের মৃত্যু, শঙ্কায় মা

ফতুল্লা সংবাদদাতা
  • প্রকাশিত সময় : সোমবার, ২৩ নভেম্বর, ২০২০
  • ১৪৮ বার পঠিত
ফতুল্লায় অগ্নিদগ্ধ বাবা-মেয়ের মৃত্যু, শঙ্কায় মা

নারায়ণগঞ্জের ফতুল্লায় অগ্নিকান্ডে একই পরিবারের তিনজন দগ্ধ হয়েছেন। এরমধ্যে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় দীপায়ন সরকার (৩৫) ও তাঁর মেয়ে দিয়া রানী সরকার (৫) মারা গেছেন। আশঙ্কাজনক অবস্থায় এখনও চিকিৎসাধীন মা পপি সরকার (২৮)।

শনিবার (২১ নভেম্বর) রাতে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন ও প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তাদের মৃত্যু হয়।

মর্মান্তিক ঘটনাটি ঘটেছে শুক্রবার (২০ নভেম্বর) দিবাগত রাতে ফতুল্লার দাপা ইদ্রাকপুর সরদার বাড়ী এলাকায় আনোয়ার হোসেনের ভাড়া বাসায়।

হাসপাতালে চিকিৎসাধীন দগ্ধ পপি সরকারের বরাত দিয়ে দীপায়নের বড় বোনের জামাতা সুসেন সরকার বলেন, ‘শুক্রবার মধ্য রাতে গ্যাস লাইটার দিয়ে মশার কয়েল ধরাতে গেলে রুমের মধ্যে আগুন লেগে যায়। এসময় তাদের চিৎকারে প্রতিবেশিরা এসে আগুন নিভিয়ে তাদের উদ্ধার করে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে আসে।’

ডাক্তারের বরাত দিয়ে তিনি বলেন, দীপায়নের শরীরের ৪৮ শতাংশ, দিয়ার ৪০ শতাংশ ও পপির ৩০ শতাংশ পুড়ে গেছে। মূলত তাদের মুখমন্ডল ও শ্বাসনালী পুড়ে গেছে। যার জন্য শনিবার রাত ১০টার দিকে দীপায়ন ও দিয়া মারা গেছে। পপি এখনও আশঙ্কাজনক বলেছে ডাক্তার।

সুসেন সরকার আরো বলেন, গ্রামে খুব কষ্টে জীবন যাপন করছিল। যার জন্য আমি তাদের বলি শহরে আসলে স্বামী স্ত্রী দুইজনের কাজের ব্যবস্থা করে দিবো। মেয়েটাকে এখানে ভালো স্কুলে ভর্তি করিয়ে দিবো। এজন্য এখানে বাসাও ঠিক করে দেই। যার জন্য ১০ দিন আগে গ্রাম থেকে পরিবার নিয়ে নারায়ণগঞ্জে আসে। কয়েক জায়গায় কাজের জন্য কথাও চলছিল। এর মধ্যে কিভাবে কি হয়ে গেলো কিছুই বুঝতে পারছি না। এ বলেই তিনি কান্না শুরু করেন।

কান্না থামিয়ে তিনি বলেন, এক তলা ভবনের সারিসারি রুমের মধ্যে এক রুমের একটি বাসা নিয়েছি। পাশেই রান্না ঘর ছিল। হয়তো রান্না শেষে গ্যাস ভালো ভাবে বন্ধ করেনি। যার জন্য গ্যাস লিকেজ হয়ে ঘরের ভেতর গ্যাস জমে ছিল। যখনই গ্যাস লাইটটা দিয়ে কয়েল ধরাতে গেছে তখনই আগুন জ্বলে উঠছে।

ফতুল্লা মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) আসলাম হোসেন বলেন, শনিবার রাতে বাবা ও মেয়ে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা গেছে। স্ত্রীর অবস্থা এখনও আশঙ্কাজনক। তাদের লাশ গ্রামের বাড়িতে নিয়ে যাওয়ার জন্য সব ধরনের সহযোগিতা করা হয়েছে।

নিউজটি শেয়ার করুন :

আপনার মন্তব্য প্রদান করুন...

এই ক্যাটাগরীর আরো খবর..

error: Content is protected !!