1. rakibchowdhury877@gmail.com : Narayanganjer Kagoj : Narayanganjer Kagoj
  2. admin@narayanganjerkagoj.com : nkagojadmin :
মঙ্গলবার, ২৬ জানুয়ারী ২০২১, ১১:৩১ পূর্বাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম :
মুজিব শতবর্ষ উপলক্ষে ব্যাডমিন্টন টুর্নামেন্টের ফাইনাল খেলা সম্পন্ন রিয়াদ মোঃ চৌধুরীকে স্বেচ্ছাসেবক দলের পক্ষ থেকে শুভেচ্ছা জ্ঞাপন হাইব্রিড নিয়ে বিপাকে ফতুল্লা থানা আ’লীগ লিটনকে রেলস্টেশন বাজার দোকান মালিকদের ফুলেল শুভেচ্ছা লিটনকে শাহ্ ফতেহউল্লাহ কিন্ডারগার্টেনের শিক্ষক-শিক্ষিকাদের ফুলেল শুভেচ্ছা রিয়াদ মোঃ চৌধুরীকে ফতুল্লা ইউনিয়ন স্বেচ্ছাসেবক দলের ফুলেল শুভেচ্ছা পলাশকে পুনরায় মেম্বার হিসেবে দেখতে চায় ৫নং ওয়ার্ডবাসী ফরিদ আহমেদ লিটনকে স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতাকর্মীদের ফুলেল শুভেচ্ছা আলোকিত মাসদাইর সংসদের কম্বল বিতরণ ফরিদ আহমেদ লিটনকে হাসমত মেম্বারের ফুলেল শুভেচ্ছা শওকত চেয়ারম্যানকে ফরিদ আহমেদ লিটনের ফুলেল শুভেচ্ছা ফরিদ আহমেদ লিটনকে প্রান্ত পালের ফুলেল শুভেচ্ছা না’গঞ্জ জেলা ছাত্র-যুব ও শ্রমিক অধিকার পরিষদের প্রতিনিধি সভা অনুষ্ঠিত ফরিদ আহমেদ লিটনকে স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতাকর্মীদের ফুলেল শুভেচ্ছা লিটনকে আদর্শনগর সমাজ উন্নয়ন কমিটির নেতাকর্মীদের ফুলেল শুভেচ্ছা

রক্ষক যদি ভক্ষক হয়, আমরা দাঁড়াব কোথায়?

মোঃ মনির হোসেন
  • প্রকাশিত সময় : মঙ্গলবার, ১৩ অক্টোবর, ২০২০
  • ১৯০ বার পঠিত
রক্ষক যদি ভক্ষক হয়, আমরা দাঁড়াব কোথায়?

‘‘রক্ষক যদি ভক্ষক হয়, তখন জাতি এর থেকে কী আর আশা করতে পারে? আইন, বিচার, শাসন বিভাগের কাছ থেকে জাতি আজ দিশেহারা। নির্যাতনের শিকার ক্রমাগত বেড়েই চলছে। গত রবিবার সকাল ৬টা ৪০ মিনিটের সময় সিলেট এমএজি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে রায়হান উদ্দিন (৩৪) নামের এক যুবককে গুরুতর আহতাবস্থায় ভর্তি করেন বন্দর বাজার ফাঁড়ির এএসআই আশেক এলাহী। চিকিৎসাধীন অবস্থায় ৭টা ৫০ মিনিটে রায়হান হাসপাতালে মারা যান। তার শরীরের বিভিন্ন স্থানে আঘাতের চিহ্ন ছিল। হাতের নখও উপড়ানো ছিল। রায়হান উদ্দিন সিলেট নগরীর আখালিয়ার নেহারিপাড়ার মৃত রফিকুল ইসলামের ছেলে। তার তিন মাসের এক মেয়ে রয়েছে। নগরীর রিকাবি বাজার স্টেডিয়াম মার্কেটে এক চিকিৎসকের চেম্বারে কাজ করতো সে।

রায়হানের মৃত্যুর পর পুলিশের পক্ষ থেকে দাবি করা হয় সে ছিনতাইকারী ছিল। নগরীর কাস্টঘর এলাকায় ছিনতাই করতে গিয়ে গণপিটুনিতে তার মৃত্যু হয়েছে। কিন্তু তার পরিবার পুলিশের অভিযোগ অস্বীকার করে ফাঁড়িতে আটকে রেখে নির্যাতনে হত্যার অভিযোগ তুলেন। এরপর পুলিশও আগের অবস্থান থেকে সরে এসে ঘটনাটি সুষ্ঠু তদন্তের আশ্বাস দেয়। এর প্রেক্ষিতে সোমবার বন্দর বাজার ফাঁড়ির ইনচার্জসহ চার পুলিশ সদস্যকে সাময়িক বরখাস্তও তিনজনকে প্রত্যাহার করা হয়। ওই ঘটনায় গত রবিবার দিবাগত রাতে নিহত রায়হানের স্ত্রী তাহমিনা আক্তার তান্নী বাদী হয়ে কোতোয়ালী থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন। মামলায় তার স্বামীকে বন্দর বাজার ফাঁড়িতে আটকে রেখে ১০ হাজার টাকা দাবি ও দাবিকৃত টাকা না পেয়ে নির্যাতন করে মেরে ফেলার অভিযোগ করেন।

বর্তমানে সিলেটে পুলিশী নির্যাতনে যুবকের মৃত্যুর ঘটনায় বরখাস্ত হওয়া সিলেট মহানগর পুলিশের বন্দর বাজার ফাঁড়ির ইনচার্জ এসআই আকবর হোসেন ভুইয়াকে খুঁজে পাওয়া যাচ্ছে না। এর আগে আকবরসহ ৪ পুলিশ সদস্যকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়।

এদেশে অপরাধমূলক অনেক ঘটনা নিরবে ঘটে যায়, যা কেউ জানেই না। তাই বিচারের তো কোনো প্রশ্নই আসে না। তাই তো ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাজবিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক ও জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের যৌন নির্যাতন প্রতিরোধ কমিটির সদস্য সাদেকা হালিম এক সাক্ষাৎকারে বলেন, ‘‘কোনো ঘটনা মিডিয়াতে আসলে তার বিচার হয়। কিন্তু ক’টি ঘটনাই বা মিডিয়াতে আসে? ফলে অধিকাংশ ঘটনারই কোনো বিচার হয় না। এই বিচারহীনতার সংস্কৃতিই যৌন নির্যাতনের মাত্রা বাড়িয়ে দিয়েছে। বিচার করে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির ব্যবস্থা করা গেলে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, কর্মস্থলে যৌন নির্যাতন বন্ধ করা সম্ভব হতো।”

‘‘হায়রে দেশ, খুবই দুঃখজনক!”

গত কিছুদিন আগে সিলেটের এমসি কলেজ ছাত্রাবাসে তরুণীকে গন ধর্ষণের মত এমন একটি ঘটনা ঘটিয়েছে একদল নরপশু, যা সারা দেশের বিবেকবান মানুষকে কাঁপিয়ে দিয়েছে।

গত ২সেপ্টেম্বর রাতে এক নারীর আগের স্বামী তার সঙ্গে দেখা করতে তার বাবার বাড়ি একলাশপুর ইউনিয়নের জয়কৃষ্ণপুর গ্রামে এসে তাদের ঘরে ঢোকেন। বিষয়টি দেখতে পায় স্থানীয় মাদক ব্যবসায়ী ও দেলোয়ার বাহিনীর প্রধান দেলোয়ার। রাত ১০টার দিকে দেলোয়ার তার লোকজন নিয়ে ওই নারীর ঘরে প্রবেশ করে পরপুরুষের সঙ্গে অনৈতিক কাজ ও তাদের কুপ্রস্তাবে রাজি না হওয়ায় তাকে মারধর শুরু করেন। একপর্যায়ে পিটিয়ে নারীকে বিবস্ত্র করে ভিডিও ধারণ করে। ৪ অক্টোবর দুপুরে ওই ভিডিওটি সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়লে জেলায় তথা দেশব্যাপী তোলপাড় সৃষ্টি হয়।

মানুষের হিংস্রতা এতবেশি প্রকট আকার ধারণ করছে যার জন্য মানুষ আর পশুতে কোনো ভেদাভেদ থাকছে না। পশুর মধ্যেও এত হিংস্রতা নেই, যতটা মানুষের মধ্যে দেখা যায়। এ ধরণের সংবাদ শোনার পর বিশ্বাস হয় না যে আমরা মানুষ। মানুষের মধ্যে পশুর মত এমন হিং¯্রতা সত্যি মেনে নেওয়া যায় না। মানুষ আর পশু এক নয়। মানুষের বোধশক্তি আছে, যেটা কিনা পশুর নেই। কোন কাজটা করলে ভালো হবে, আর কোনটা করলে খারাপ হবে এই বোধটুকু প্রত্যেক মানুষের মধ্যেই থাকে, যেটা কিনা পশুর মধ্যে থাকে না। কিন্তু বর্তমানে মানুষ এতবেশি হিংস্র আর বর্বর হয়ে গেছে, তার মধ্যে বিচার বিবেচনা বোধটুকুও লোপ পেয়েছে। ওই মানুষগুলাকে পশুর সাথে তুলনা করা ছাড়া আর কি বলা যায়? বলার, লেখার বা প্রতিবাদের ভাষা নেই! প্রকৃত মানুষ হলে তো একটা কুকুরের গায়েও গরম পানি ঢালতে হাত কেঁপে ওঠার কথা।

পরিশেষে এইটুকু বলতে চাই, আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী বলতে সাধারণত আমরা যে পুলিশকেই বুঝি, সে পুলিশেরই আইনশৃঙ্খলা বিরোধী কর্মকান্ড অত্যন্ত উদ্বেগজনক। ব্যক্তিগত আক্রোশ কিংবা অর্থের লোভে পুলিশের অপরাধ আরও গুরুতর। আমরা চাই, এর সুষ্ঠু তদন্ত করে অপরাধীর দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির ব্যবস্থা করা হোক। রক্ষকই যদি ভক্ষকের ভূমিকা পালন করে, তাহলে নাগরিকরা দাঁড়াবে কোথায়?

লেখক-
মোঃ মনির হোসেন
সাংবাদিক ও কলামিস্ট
সিনিয়র সহ-সভাপতি, ফতুল্লা রিপোর্টার্স ক্লাব।

নিউজটি শেয়ার করুন :

আপনার মন্তব্য প্রদান করুন...

এই ক্যাটাগরীর আরো খবর..

error: Content is protected !!