1. rakibchowdhury877@gmail.com : Narayanganjer Kagoj : Narayanganjer Kagoj
  2. admin@narayanganjerkagoj.com : nkagojadmin :
সোমবার, ০৬ জুলাই ২০২০, ০৯:৩০ পূর্বাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম :
রাস্তা সংস্কারের জন্য বৈঠকখানা ফাউন্ডেশনকে অর্থ প্রদান করলেন ফরিদ আহম্মেদ লিটন নির্মল রঞ্জন গুহ, আলো ও নিজাম উদ্দিনের রোগমুক্তি কামনায় জেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের দোয়া করোনামুক্ত ও পুরোপুরি সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরলেন শ্রমিক নেতা পলাশ রূপগঞ্জে ব্যবসায়ী হত্যার বিচার দাবিতে মানববন্ধন আড়াইহাজারে শিশু ধর্ষণের অভিযোগে গ্রেফতার ১ আড়াইহাজারে বিদ্যুৎস্পৃষ্টে শ্রমিক নিহত আড়াইহাজারে পানিতে ডুবে শিশুর মৃত্যু ফতুল্লায় মাদকসহ আকাশ গ্রেফতার পাগলায় বিদ্যুৎস্পৃষ্টে ইলেকট্রিক মিস্ত্রির মৃত্যু সাংবাদিক রণজিৎ মোদকের ৬৫তম জন্মদিন আজ ফতুল্লার বাইতুল আফিয়া মসজিদ সড়কের নির্মাণ কাজের উদ্বোধন বক্তাবলীর আফাজ চেয়ারম্যান আর নেই আলোকিত ফতুল্লার উদ্যোগে হোমিও ওষুধ বিতরণ ফতুল্লায় থেমে নেই কেমিস্ট মিজান-নাজমুলের ফেনসিডিলের ব্যবসা ফতুল্লায় ডাইংয়ে অগ্নিকান্ড

স্বামী দাঁত মাজেন না, ডিভোর্স চাইলেন স্ত্রী

নারায়ণগঞ্জের কাগজ ডেস্ক
  • প্রকাশিত সময় : সোমবার, ১৩ জানুয়ারী, ২০২০
  • ৬৯৭ বার পঠিত
স্বামী দাঁত মাজেন না, ডিভোর্স চাইলেন স্ত্রী
স্বামী দাঁত মাজেন না, ডিভোর্স চাইলেন স্ত্রী - ছবি : সংগৃহীত

নারায়ণগঞ্জের কাগজ : স্বামী চূড়ান্ত অপরিচ্ছন্ন। স্নান করেন না, ব্রাশও করেন না। বারবার বলা সত্ত্বেও পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন থাকার কোনো চেষ্টাও করেন না। স্বামীর এই নোংরা স্বভাবের জন্য এবার বিবাহ বিচ্ছেদের মামলা করলেন স্ত্রী। তার দাবি, বারবার বলা সত্ত্বেও স্বামীর স্বভাব শুধরোয়নি। আগামী দিনে তাই তার পক্ষে ওই ব্যক্তির সাথে থাকা সম্ভব নয়। বিহারের বৈশালীর এই ঘটনায় রীতিমতো অবাক নেটিজেনরা।

ওই মহিলার নাম সোনি দেবী। বয়স বছর কুড়ি। বিহারের বৈশালী জেলার নয়াগ্রামে থাকেন স্বামীর সাথে। থাকেনই বটে, তাদের সম্পর্কে আর হৃদ্যতা নেই। হয়তো ভাবছেন, মনের মিল হচ্ছে না, বা অন্য কোনো সমস্যা! কিন্তু, এর কোনোটাই নয়। সোনি ও তার স্বামী মণীশ রামের সম্পর্কের অবনতি হওয়ার একটাই কারণ, সেটা অপরিচ্ছন্নতা। মণীশ স্বভাবসিদ্ধ অপরিচ্ছন্ন। শীত-গ্রীষ্ম-বর্ষা কোনোকালেই স্নান করতে পছন্দ করেন না। সকালে উঠে দাঁত মাজতেও বিরক্তি তার। দীর্ঘদিন এটা চলতে থাকাই, সোনির পক্ষে আর তার সাথে থাকা সম্ভব হচ্ছিল না।

সোনির দেয়া তথ্য অনুযায়ী, ২০১৭ সালে মণীশ রামের সাথে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হন তিনি। শুরু থেকেই বুঝতে পেরেছিলেন, স্বামী চূড়ান্ত অপরিষ্কার। তবে, তখন শাশুড়ির ভয়ে মাঝে মাঝে স্নান করতেন। সকালে দাঁতও মাজতেন। কিন্তু, শাশুড়ি মারা যাওয়ার পর থেকেই পরিস্থিতি সহ্যের সীমা অতিক্রম করে। টানা ৮-১০ দিন স্নান করতেন না মণীশ। দাঁত মাজা একেবারেই ছেড়ে দিয়েছিলেন।

শেষমেষ বাধ্য হয়েই, বিবাহ বিচ্ছেদের মামলা করেন সোনি দেবী। সোনি বলছেন, ও আমার জীবন দুর্বিষহ করে দিয়েছে। মামলা করা হয় মহিলা কমিশনে। যদিও, মহিলা কমিশন সোনিকে এখনই বিবাহ বিচ্ছেদ না করার পরামর্শ দিয়েছে। তারা আরও দু’মাস দুজনকে একসাথে থাকার পরমার্শ দিয়েছে। এবং মণীশকেও নিয়মিত স্নান ও ব্রাশ করার পরামর্শ দেয়া হয়েছে।

নিউজটি শেয়ার করুন :

আপনার মন্তব্য প্রদান করুন...

এই ক্যাটাগরীর আরো খবর..

error: Content is protected !!